মানুষকে সতর্ক করে দিতে মহাগ্রন্থ আল কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে

0
93

“তোমরা কি ভেবে দেখেছ, তোমাদের বীর্যপাত সম্পর্কে। তা দ্বারা সন্তান সৃষ্টি তোমরা করো, না তার স্রষ্টা আমি ?
আমি তোমাদের মধ্যে মৃত্যুকে বন্টন করেছি৷ তোমাদের আকার আকৃতি পাল্টে দিতে এবং তোমাদের অজানা কোন আকার -আকৃতিতে সৃষ্টি করতে আমি অক্ষম নই? নিজেদের প্রথমবার সৃষ্টি সম্পর্কে তোমরা জান৷ তবুও কেন শিক্ষা গ্রহণ করোনা৷ তোমরা কি কখনো ভেবে দেখেছো, যে বীজ তোমরা বপন করে থাকো তা থেকে ফসল উৎপন্ন তোমরা করো, না আমি?

আমি চাইলে এসব ফসলকে দানাবিহীন ভূষি বানিয়ে দিতে পারি৷ তখন তোমরা নানা রকমের কথা বলতে থাকবে ৷ বলবেঃ আমরা তো ঋণের চাপে পড়ে গেলাম; বরং আমরা হূত সর্বস্ব হয়ে পড়লাম। তোমরা কি চোখ মেলে কখনো দেখেছো, যে পানি তোমরা পান করো, মেঘ থেকে তা তোমরা বর্ষণ করো, না তার বর্ষণকারী আমি? আমি চাইলে তা লবণাক্ত বানিয়ে দিতে পারি৷ তা সত্ত্বেও তোমরা শোকরগোজার হও না কেন?

তোমরা কি কখনো লক্ষ করেছো, -এই যে আগুন তোমরা জ্বালাও তার গাছ তোমরা সৃষ্টি করো, না তার সৃষ্টিকর্তা আমি? আমি সেটিকে স্মরণ করিয়ে দেয়ার উপকরণ এবং মুখাপেক্ষীদের জন্য জীবনোপকরণ বানিয়েছি৷ অতএব হে নবী, তোমার মহান রবের পবিত্রতা বর্ণনা করো ৷”
[সূরা আল ওয়াকিয়া আয়াত ৫৮-৭৪]