কান্ট্রি মিউজিকের কিংবদন্তি কেনি রজার্স মারা গেছেন

0
33

কান্ট্রি মিউজিকের কিংবদন্তি সংগীততারকা কেনি রজার্স আজ শনিবার ২১ মার্চ ২০২০ মারা গেছেন । তাঁর বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘বাড়িতে স্বাভাবিকভাবে ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর সময় পরিবারের নিকটাত্মীয় ও প্রিয়জনেরা তাঁকে ঘিরে ছিলেন।’ 

৩টি গ্র্যামি বিজয়ী এই সংগীতশিল্পী ১৯৭০ ও ১৯৮০–এর দশকে বিশ্বসংগীতের সবচেয়ে জনপ্রিয় নামগুলোর একটি। তাঁর কিঞ্চিৎ কর্কশগলাই (হাস্কি) তুলকালাম ঘটিয়ে দিয়েছিল সংগীতাঙ্গনে। দ্য গ্যাম্বলার, কাওয়ারর্ড অব দ্য কান্ট্রি, লুসিলি (১৯৭৭) গানগুলোর আবেদন যেন চিরন্তন। দশকের পর দশক গানগুলো শুনেছে বিশ্বের মানুষ। আজও ইউটিউবে প্রতিটি গানের নিচে কোটি কোটি ‘ভিউ’ জানিয়ে দেয়, গানগুলো আছে, থাকবে। পরিবারের পক্ষ থেকে তাই কেনি রজার্সের মৃত্যুর আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে বলা হয়, মার্কিন সংগীতে কেনির অবদান অবিশ্বাস্য।

কিংবদন্তি কান্ট্রি মিউজিকের সংগীততারকা কেনি রজার্স না ফেরার দেশে চলে গেলেন । নিজ বাড়িতে স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে এই সংগীতশিল্পীর। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। কেনির মৃত্যুর বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত করেছে তার পরিবার। কেনি রজার্স ছিলেন একাধারে সংগীতশিল্পী, গীতিকবি, অভিনয়শিল্পী, রেকর্ডের প্রযোজক ও উদ্যোক্তা। জীবদ্দশায় তিনি পাঁচবার বিয়ে করেছেন। তিনি পাঁচ সন্তানের জনক। কেনি রজার্স আজ থেকে বিশ্বসংগীতের ইতিহাসের একটা বড় অধ্যায়ের নাম, খসে পড়া জ্বলজ্বলে এক তারার নাম।

১৯৩৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে জন্মগ্রহণ করেন কেনি রজার্স। শৈশব থেকেই গানের সঙ্গে তাঁর সখ্যতা। শুরুটা করেছিলেন ব্যান্ড দিয়ে। তবে আকাশকুসুম জনপ্রিয়তা লাভ করেন নিজের একক ক্যারিয়ারের গান দিয়ে। লিওনেল রিচির লেখা ‘লেডি’ গেয়ে দারুণ জনপ্রিয়তা পান কেনি। তরুণ বয়সে কেনি রজার্সের সেই অসাধারণ ভরাট গলার ‘লেডি’ গানটি এখনো মুগ্ধতায় ভাসায় সংগীতপ্রেমিদের।

কেনি রজার্স ‘ইউএসএ টুডে’ ও ‘পিপল’ ম্যাগাজিনের জরিপে সর্বকালের সেরা জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন৷ তার দুটো অ্যালবাম ‘দ্য গ্যাম্বলার’ আর ‘কেনি’ ঠাঁই করে নিয়েছে কান্ট্রি মিউজিকের সর্বকালের সেরা ২০০ অ্যালবামের তালিকায়। গানগুলোর আবেদন যেন চিরন্তন।

ব্যক্তিগতভাবে কেনির সবচেয়ে পছন্দের গান ছিল ‘দ্য গ্যাম্বলার’ অ্যালবামের টাইটেল গানটি৷ তার ‘গ্যাম্বলার’ গানটি এতটাই জনপ্রিয়তা পায় যে, পরবর্তী সময়ে টেলিভিশনের জন্য একটি সিনেমাও নির্মিত হয় ‘কেনি রজার্স অ্যাজ দ্য গ্যাম্বলার’ নামে। এতে অভিনয়ও করেন তিনবার গ্র্যামিজয়ী এই সংগীততারকা।এই সংগীতশিল্পী ১৯৭০ ও ১৯৮০–এর দশকে বিশ্বসংগীতের সবচেয়ে জনপ্রিয় নামগুলোর একটি।

দ্য গ্যাম্বলার, কাওয়ারর্ড অব দ্য কান্ট্রি, লুসিলি (১৯৭৭) দশকের পর দশক গানগুলো শুনেছে বিশ্বের মানুষ। আজও ইউটিউবে প্রতিটি গানের নিচে অজশ্র ‘ভিউ’ জানিয়ে দেয়, গানগুলো আছে, থাকবে। পরিবারের পক্ষ থেকে তাই কেনি রজার্সের মৃত্যুর আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে বলা হয়, মার্কিন সংগীতে কেনির অবদান অবিশ্বাস্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here